September 25, 2022, 2:30 am

ধর্ষণ করছিল চাতালে, ঠাঁই হলো কারাগারে

বগুড়ার আদমদীঘিতে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরী (১২) ধর্ষণের অভিযোগে নয়ন চন্দ্র দাস (৩৫) নামের এক লম্পটকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে স্থানিয়রা। নয়ন চন্দ্র দাস উপজেলার তালশন পালপাড়ার অনিল চন্দ্র দাসের ছেলে। ওই গ্রামের জনৈক আচ্চু শেখের পরিত্যক্ত চাতালের ম্যানেজার রুমের দক্ষিন পাশে গলির ভেতরে ঘটনাটি ঘটে। বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানায়ায়, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী কিশোরীর বাবা পরিবার নিয়ে গত ১০ বছর ধরে তালশন গ্রামে পরিত্যক্ত ওই চাতালের ম্যানেজারের রুমে বসবাস করছিলেন। গত ৬ মাস আগে সেখান থেকে একই গ্রামে তার শ্বশুরের বাড়ীতে বসবাস শুরু করেন। তিনি বুধবার সকাল ৮টায় বাড়ি থেকে বেরিয়ে অন্যের ধানের জমিতে স্প্রে করতে যান। এরপর দুপুর সাড়ে ১২ টায় বাড়ীতে ফিরে মেয়েকে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন। এসময় পরিত্যক্ত ওই চাতালে গিয়ে দেখতে পান নয়ন কৌশলে চাতালের পরিত্যক্ত ঘরের বারান্দায় নিয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণ করছে। ধর্ষক নয়নকে আটকের চেষ্টা করলে সে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা তাকে আটক করে। পরে পুলিশে খবর দিলে ঘটনাস্থল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। ওই দিন রাতেই বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন।

আদমদীঘি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম রেজা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং সেই সাথে গ্রেপ্তারকৃত নয়ন দাসকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

 

 

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি

 

নিউজটি শেয়ার করুন


© All rights reserved © seradesh.com
Design, Developed & Hosted BY ALL IT BD